প্রিপেইড মিটারে সর্বনিম্ন কত টাকা রিচার্জ করা যায়

Spread the love

আপনারা অনেকেই জানেন না প্রিপেইড মিটারে সর্বনিম্ন কত টাকা রিচার্জ করা যায়। তাই এই বিষয়ে আজকে আমি বিস্তারিত আলোচনা করতে চলেছি। প্রিপেইড মিটারের দিন দিন ব্যাবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই প্রিপেইড মিটার সম্পর্কে সকল তথ্য জানতে হবে।

প্রিপেইড মিটারে সর্বনিম্ন কত টাকা রিচার্জ করা যায়

প্রিপেইড মিটারে সর্বনিম্ন কত টাকা রিচার্জ করা যায় । প্রিপেইড মিটার সর্বনিম্ন ১১২-১১৫ টাকা (সার্ভিস চার্জ, ভ্যাট মিটার ভাড়া সহ)।  বাদ দিয়ে যত টাকা ইচ্ছে রিচার্জ করতে পারবেন। ধরুন আপনি ১০০০ টাকা রিচার্জ করলেন তাহলে আপনার প্রিপেইড মিটারে ৮৮৫ টাকার মত থাকবে।

প্রিপেইড মিটার, যা প্রিপেইমেন্ট মিটার বা টোকেন মিটার নামেও পরিচিত, হল ইলেকট্রনিক ডিভাইস যা বিদ্যুতের ব্যবহার নিরীক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যবহৃত হয়। এই মিটারগুলিতে ব্যবহারকারীদের তারা যে বিদ্যুত ব্যবহার করবে তার জন্য অগ্রিম অর্থ প্রদান করতে হবে, সাধারণত প্রিপেইড টোকেন বা রিচার্জ ভাউচার কেনার মাধ্যমে।

2021 সালের সেপ্টেম্বরে আমার জ্ঞান কাট-অফ হওয়ার পর থেকে আমার কাছে সবচেয়ে আপ-টু-ডেট তথ্যের অ্যাক্সেস না থাকলেও, তখন পর্যন্ত উপলব্ধ তথ্যের ভিত্তিতে আমি আপনাকে বাংলাদেশে প্রিপেইড মিটারের একটি সাধারণ ওভারভিউ দিতে পারি।

প্রিপেইড মিটার রিচার্জ হচ্ছে না | প্রিপেইড মিটার সমস্যা

যাদের প্রিপেইড মিটার রিচার্জ হচ্ছে না তারা এই পোস্টটি দেখতে পারেন। সেখানে বিস্তারিত আলোচনা করা আছে।

বাংলাদেশে, বিদ্যুৎ বিতরণ এবং বিলিং প্রক্রিয়ার দক্ষতা উন্নত করতে কিছু এলাকায় প্রিপেইড মিটার প্রয়োগ করা হয়েছে। প্রিপেইড মিটার বাস্তবায়নের লক্ষ্য হল বিদ্যুৎ চুরি, ভুল মিটার রিডিং এবং বিলম্বে অর্থ প্রদানের মতো সমস্যাগুলি সমাধান করা।

বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ড (বিপিডিবি) এবং পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড (আরইবি) দেশের প্রিপেইড মিটার বাস্তবায়ন ও পরিচালনার জন্য দায়ী প্রাথমিক কর্তৃপক্ষ। এই মিটারগুলি সাধারণত আবাসিক, বাণিজ্যিক এবং শিল্প প্রাঙ্গনে ইনস্টল করা হয়।

একটি প্রিপেইড মিটার পেতে, গ্রাহকদের সাধারণত তাদের নিজ নিজ বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। ইনস্টলেশন প্রক্রিয়া এবং প্রয়োজনীয়তা নির্দিষ্ট বিতরণ কোম্পানি বা এলাকার উপর নির্ভর করে পরিবর্তিত হতে পারে।

প্রিপেইড মিটারে সর্বনিম্ন কত টাকা রিচার্জ করা যায়

ডেসকো প্রিপেইড মিটার ব্যালেন্স চেক

ডেসকো প্রিপেইড মিটার ব্যালেন্স চেক করতে না পারলে এই পোস্টে বিস্তারিত বিষয়ে আলোচনা করা আছে চাইলে দেখতে পারেন।

একবার প্রিপেইড মিটার ইনস্টল হয়ে গেলে, গ্রাহকরা নির্ধারিত আউটলেট বা অনলাইন প্ল্যাটফর্ম থেকে প্রিপেইড টোকেন বা রিচার্জ ভাউচার কিনতে পারবেন। এই টোকেনগুলিতে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বিদ্যুৎ ইউনিট থাকে, যা একটি অনন্য কোড বা টোকেন ব্যবহার করে প্রিপেইড মিটারে লোড করা হয়। মিটার প্রিপেইড ব্যালেন্স থেকে গ্রাসকৃত ইউনিটগুলিকে শূন্যে না পৌঁছানো পর্যন্ত কেটে নেয়, এই সময়ে আরও ইউনিট কেনা না হওয়া পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ সাময়িকভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

বাংলাদেশে প্রিপেইড মিটার বাস্তবায়নের লক্ষ্য হচ্ছে স্বচ্ছতা প্রচার করা, বিদ্যুৎ চুরি কমানো এবং বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির রাজস্ব সংগ্রহের উন্নতি করা। এটি গ্রাহকদের তাদের বিদ্যুতের ব্যবহার এবং ব্যয়ের উপর আরও ভাল নিয়ন্ত্রণ করতে দেয়।

অনুগ্রহ করে মনে রাখবেন যে এখানে প্রদত্ত তথ্য 2021 সালের সেপ্টেম্বরে আমার সর্বশেষ জ্ঞান আপডেটের পর থেকে পরিবর্তিত হতে পারে। তাই, প্রিপেইড মিটার সম্পর্কিত সবচেয়ে সঠিক এবং আপ-টু-ডেট তথ্যের জন্য সাম্প্রতিক উত্সগুলির সাথে পরামর্শ করা বা বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

ভোক্তাদের জন্য সুবিধা:

  • নিয়ন্ত্রণ এবং সচেতনতা: প্রিপেইড মিটার গ্রাহকদের তাদের বিদ্যুতের ব্যবহার এবং ব্যয়ের উপর অধিকতর নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম করে। তারা রিয়েল-টাইমে তাদের খরচ নিরীক্ষণ করতে পারে এবং শক্তি সংরক্ষণের জন্য জ্ঞাত সিদ্ধান্ত নিতে পারে।
  • নমনীয় অর্থপ্রদান: প্রিপেইড মিটার গ্রাহকদের তাদের বিদ্যুৎ ক্রয়ের পরিমাণ এবং ফ্রিকোয়েন্সি চয়ন করতে দেয়, তাদের বাজেট পরিচালনার ক্ষেত্রে নমনীয়তা প্রদান করে।
  • স্বচ্ছতা: প্রিপেইড মিটার বিলিংয়ে স্বচ্ছতা প্রদান করে কারণ গ্রাহকরা তাদের বিদ্যুত খরচ এবং ব্যয় ট্র্যাক করতে পারেন।

বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানির সুবিধা:

  • রাজস্ব সংগ্রহ: প্রিপেইড মিটার বিদ্যুত বিতরণ কোম্পানিগুলির জন্য উন্নত রাজস্ব সংগ্রহের সুবিধা দেয় যেহেতু অগ্রিম অর্থ প্রদান করা হয়।
  • হ্রাসকৃত বিদ্যুত চুরি: প্রিপেইড মিটার বিদ্যুৎ চুরি এবং অননুমোদিত ব্যবহার রোধ করতে সাহায্য করে, কারণ সরবরাহ প্রিপেইড ক্রেডিট উপলব্ধতার উপর নির্ভরশীল।
  • দক্ষ বিলিং: প্রিপেইড মিটার ম্যানুয়াল মিটার রিডিং এবং বিলিং গণনার প্রয়োজনীয়তা দূর করে, বিতরণ কোম্পানিগুলির জন্য বিলিং প্রক্রিয়াকে সুগম করে।

ইনস্টলেশন এবং রক্ষণাবেক্ষণ:

  • ইনস্টলেশন প্রক্রিয়া: প্রিপেইড মিটার ইনস্টল করার জন্য সাধারণত মিটার ইনস্টলেশনের অনুরোধ করার জন্য বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি বা প্রাসঙ্গিক কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা জড়িত। কোম্পানী প্রক্রিয়া এবং সংশ্লিষ্ট ফি সম্পর্কে আরও নির্দেশনা প্রদান করবে।
  • রিচার্জ করার বিকল্প: গ্রাহকরা নির্ধারিত আউটলেট বা অনলাইন প্ল্যাটফর্ম থেকে টোকেন বা রিচার্জ ভাউচার কিনে তাদের প্রিপেইড মিটার রিচার্জ করতে পারেন। এই টোকেনগুলিতে একটি অনন্য কোড থাকে যা প্রিপেইড ক্রেডিট লোড করার জন্য মিটারে প্রবেশ করা হয়।
  • রক্ষণাবেক্ষণ এবং সহায়তা: বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানিগুলি প্রিপেইড মিটারের রক্ষণাবেক্ষণ এবং সহায়তার জন্য দায়ী, যেকোন প্রযুক্তিগত সমস্যা বা মিটারের ত্রুটির সমাধান সহ।

সরকারি উদ্যোগ:

  • বাংলাদেশ সরকার বিদ্যুৎ খাতের দক্ষতা বৃদ্ধির প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে প্রিপেইড মিটারের ব্যবহার প্রচারের পদক্ষেপ নিয়েছে।
  • বিদ্যুতের ক্ষতি কমাতে এবং রাজস্ব সংগ্রহ বাড়ানোর লক্ষ্যে শহর ও গ্রামীণ উভয় এলাকায় প্রিপেইড মিটার স্থাপন বাড়ানোর জন্য সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেছে।

আপনার এলাকায় প্রিপেইড মিটারের প্রাপ্যতা, ইনস্টলেশন পদ্ধতি এবং অর্থপ্রদানের বিকল্পগুলি সম্পর্কে সাম্প্রতিকতম তথ্য এবং সুনির্দিষ্ট বিবরণের জন্য সাম্প্রতিক উৎস্যগুলীর সাথে পরামর্শ করতে বা বাংলাদেশের প্রাসঙ্গিক বিদ্যুৎ বিতরণ কোম্পানি বা কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করতে ভুলবেন না।

প্রিপেইড মিটার কিভাবে কাজ করে?

প্রিপেইড মিটার হল এমন একটি মিটার যা বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীদের ব্যাবহারের পর বিদ্যুৎ বিলের আধারে উপযুক্ত টাকা কেটে নেয়। এটি একটি অগ্রিম পরিশোধ সিস্টেম, অর্থাৎ ব্যবহারকারী পূর্বেই বিদ্যুৎ মাত্রা কিতে ব্যবহার করবে তা নির্ধারণ করে এবং পরিশোধ করবে। যখন বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়, মিটারটি বিদ্যুৎ মাত্রা পরিমাপ করে এবং কার্যকর মানিকটি বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে যাতে মিটারে উল্লিখিত মাত্রা অপসারণ হয়ে যায়।
গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

প্রিপেইড মিটার বিদ্যুৎ মাত্রা পরিমাপ করে এবং সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে।
ব্যবহারকারী অগ্রিম পরিশোধ দিয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার করে এবং পরিশোধ করতে হয়।
মিটারটি ব্যালেন্স শূন্য হলে, বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সেটা বন্ধ করতে পারে এবং পূর্বে অবশিষ্ট ব্যালেন্স উত্তোলন করতে হয়।

ডিজিটাল মিটার চার্জ কত?

ডিজিটাল মিটারের চার্জ পরিবর্তনশীল হতে পারে এবং এটি বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা ও শর্তাবলী অনুযায়ী পরিবর্তিত হতে পারে। চার্জের পরিমাণ প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিষ্ঠানে ভিন্ন হতে পারে এবং এটি বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীকে সরবরাহকৃত বিদ্যুৎ মাত্রার উপর নির্ভর করবে। অন্যদিকে, চার্জের পরিমাণ মাসিক ফিক্সকৃত হতে পারে এবং এটি সময় থেকে সময়ে পরিবর্তিত হতে পারে।
গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

ডিজিটাল মিটারের চার্জ পরিবর্তনশীল হতে পারে এবং বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের নীতিমালা অনুযায়ী পরিবর্তিত হতে পারে।
চার্জের পরিমাণ বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীকে সরবরাহকৃত বিদ্যুৎ মাত্রার উপর নির্ভর করবে।
চার্জের পরিমাণ মাসিক ফিক্সকৃত হতে পারে এবং সময় থেকে সময়ে পরিবর্তিত হতে পারে।

প্রিপেইড মিটার কত কিলোওয়াট?

প্রিপেইড মিটার একটি মিটার হলেও, এটি বিদ্যুৎ মাত্রা নির্ধারণ করে না। প্রিপেইড মিটার সমস্ত বিদ্যুৎ মাত্রা সংগ্রহ এবং উপযুক্ত অন্তর্ভুক্তি প্রদান করে, যাতে ব্যবহারকারীর উপযুক্ত সেটিংস অনুযায়ী বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়। প্রিপেইড মিটার একটি সংখ্যায় প্রদত্ত হয় যাতে ব্যবহারকারী তার মিটারে কত বিদ্যুৎ মাত্রা উপযুক্ত বেছে নিতে পারেন।
গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

প্রিপেইড মিটার বিদ্যুৎ মাত্রা নির্ধারণ করে না।
প্রিপেইড মিটার ব্যবহারকারীর উপযুক্ত সেটিংস অনুযায়ী বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়।
প্রিপেইড মিটার ব্যবহারকারী তার মিটারে বিদ্যুৎ মাত্রা নির্বাচন করতে পারেন।

কিভাবে অনলাইনে ডেসকো প্রিপেইড মিটার ব্যালেন্স চেক করবেন?

ডেসকো প্রিপেইড মিটারের ব্যালেন্স অনলাইনে চেক করার জন্য আপনার প্রথমে ডেসকো বিদ্যুৎ সরবরাহকারীর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে যাত্রা করতে হবে। সাইটে প্রবেশ করার পর আপনাকে রেজিস্টার্ড ইউজার হতে হবে বা লগইন করতে হবে। লগইনের পর আপনি আপনার মিটারের নম্বর এবং অন্যান্য তথ্য প্রবেশ করাতে পারবেন। এরপরে আপনি অনলাইনে আপনার প্রিপেইড মিটারের ব্যালেন্স চেক করতে পারবেন।
গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

ডেসকো প্রিপেইড মিটারের ব্যালেন্স চেক করতে অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে।
সাইটে লগইন করে আপনাকে রেজিস্টার্ড ইউজার হতে হবে বা লগইন করতে হবে।
মিটারের নম্বর এবং অন্যান্য তথ্য প্রবেশ করাতে হবে ব্যালেন্স চেক করতে।

প্রিপেইড স্মার্ট মিটার কি?

প্রিপেইড স্মার্ট মিটার হল একটি বিদ্যুৎ মিটার যা ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ ও নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ব্যবহার করা হয়। এই মিটারগুলি একটি স্মার্ট মিটার প্রযুক্তিতে ভিত্তি করে যা ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত সকল তথ্য উপাত্ত করে এবং তথ্যটি ওয়েব ইন্টারফেসে উপস্থাপন করে।

প্রধান তথ্য:

  1. প্রিপেইড স্মার্ট মিটার ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত সকল তথ্য সংগ্রহ ও নিয়ন্ত্রণ করে।
  2. এই মিটার স্মার্ট প্রযুক্তির মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের উপাত্ত ও বিদ্যুৎ খরচের তথ্য প্রদান করে।
  3. প্রিপেইড স্মার্ট মিটার ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা নিজেদের বিদ্যুৎ খরচ নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন।

ক্রেডিট মিটার কি?

ক্রেডিট মিটার হল কি?

ক্রেডিট মিটার হল একটি মিটার যা বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানির দ্বারা ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার মাত্রা নির্ধারণ এবং বিদ্যুৎ ব্যবহার অনুযায়ী বিদ্যুৎ প্রদান করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এই মিটারে ব্যবহারকারীদের ক্রেডিট অ্যাকাউন্ট থাকে যা উপভোগকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এই মিটারের মাধ্যমে কোম্পানি বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করে এবং তথ্যটি ব্যবহারকারীর ক্রেডিট অ্যাকাউন্টে উপস্থাপন করে।

প্রধান তথ্য:

  1. ক্রেডিট মিটার বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানির দ্বারা ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার মাত্রা নির্ধারণ এবং বিদ্যুৎ প্রদানের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  2. ক্রেডিট মিটার ব্যবহারকারীদের ক্রেডিট অ্যাকাউন্ট থাকে যা উপভোগকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  3. ক্রেডিট মিটার ব্যবহার করে কোম্পানি বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করে এবং তথ্যটি ব্যবহারকারীর ক্রেডিট অ্যাকাউন্টে উপস্থাপন করে।

মিটার কি ধরনের?

বিদ্যুৎ মিটারের প্রকার কি?

বিদ্যুৎ মিটার কয়েকটি প্রকারে পাওয়া যায় যেমন প্রিপেইড মিটার, ক্রেডিট মিটার, এক দিন মিটার, বাই-রেট মিটার ইত্যাদি। এই মিটারগুলির প্রতিটি একটি বিশেষ কাজ পালন করে এবং ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য উপাত্ত করে।

প্রধান তথ্য:

  1. বিদ্যুৎ মিটার প্রকার হল প্রিপেইড মিটার, ক্রেডিট মিটার, এক দিন মিটার, বাই-রেট মিটার ইত্যাদি।
  2. প্রতিটি মিটার একটি বিশেষ কাজ পালন করে এবং বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য উপাত্ত করে।
  3. মিটারগুলি ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত সকল তথ্য সংগ্রহ করে এবং তথ্যটি উপস্থাপন করে।

৫ প্রকার মিটার কি কি?

প্রিপেইড মিটার কি?

প্রিপেইড মিটার হল একটি বিদ্যুৎ মিটার যা ব্যবহারকারী বিদ্যুৎ ব্যবহারের আগে অগ্রিম বিদ্যুৎ খরচ পরিশোধ করে এবং তারপর বিদ্যুৎ ব্যবহার করে। ব্যবহারকারীর কাছে একটি প্রিপেইড কার্ড থাকে যা তার মিটারের বিদ্যুৎ মাত্রা নির্ধারণ এবং বিদ্যুৎ খরচের জন্য ব্যবহৃত হয়। ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ মিটারে থাকা অগ্রিম বিদ্যুৎ খরচের মাধ্যমে নির্ধারণ করা হয়।

প্রধান তথ্য:

  1. প্রিপেইড মিটার হল বিদ্যুৎ মিটার যা ব্যবহারকারী বিদ্যুৎ ব্যবহারের আগে অগ্রিম বিদ্যুৎ খরচ পরিশোধ করে।
  2. ব্যবহারকারীর কাছে একটি প্রিপেইড কার্ড থাকে যা বিদ্যুৎ মাত্রা নির্ধারণ এবং বিদ্যুৎ খরচের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  3. বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ মিটারে থাকা অগ্রিম বিদ্যুৎ খরচের মাধ্যমে পরিশোধ করা হয়।

ক্রেডিট মিটার কি?

ক্রেডিট মিটার হল একটি বিদ্যুৎ মিটার যা বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানির দ্বারা ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার মাত্রা নির্ধারণ এবং বিদ্যুৎ প্রদান করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এই মিটারে ব্যবহারকারীদের ক্রেডিট অ্যাকাউন্ট থাকে যা উপভোগকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এই মিটারের মাধ্যমে কোম্পানি বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করে এবং তথ্যটি ব্যবহারকারীর ক্রেডিট অ্যাকাউন্টে উপস্থাপন করে।

প্রধান তথ্য:

  1. ক্রেডিট মিটার হল বিদ্যুৎ মিটার যা বিদ্যুৎ সরবরাহকারী কোম্পানির দ্বারা ব্যবহারকারীদের বিদ্যুৎ ব্যবহার মাত্রা নির্ধারণ এবং বিদ্যুৎ প্রদান করার জন্য ব্যবহৃত হয়।
  2. ক্রেডিট মিটারে ব্যবহারকারীদের ক্রেডিট অ্যাকাউন্ট থাকে যা উপভোগকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  3. ক্রেডিট মিটারের মাধ্যমে কোম্পানি বিদ্যুৎ ব্যবহার সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহ করে এবং তথ্যটি ব্যবহারকারীর ক্রেডিট অ্যাকাউন্টে উপস্থাপন করে।

এক দিন মিটার কি?

এক দিন মিটার হল একটি বিদ্যুৎ মিটার যা বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণকে এক দিনের মধ্যে নির্ধারণ এবং পরিমাণ পরীক্ষা করে। এই মিটারে ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণ দৈনিক নির্ধারণ করা হয় এবং সেই পরিমাণ বিদ্যুৎের জন্য বিলিং প্রদান করা হয়।

প্রধান তথ্য:

  1. এক দিন মিটার হল বিদ্যুৎ মিটার যা বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণকে এক দিনের মধ্যে নির্ধারণ এবং পরিমাণ পরীক্ষা করে।
  2. ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণ দৈনিক নির্ধারণ করা হয় এবং সেই পরিমাণ বিদ্যুৎের জন্য বিলিং প্রদান করা হয়।
  3. এক দিন মিটারের মাধ্যমে বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীর দৈনিক বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়।

১ kwh সমান কত?

১ kwh হল ১ কিলোওয়াট-ঘন্টা, এটি একটি বিদ্যুৎ একক যা বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ নির্দেশ করে। এটি বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ এবং সময়ের গুণনের ফলে প্রাপ্ত একটি ইউনিট। এক কিলোওয়াট-ঘন্টা একটি ইলেকট্রিক উপকরণ 1 ঘন্টা পরিচালনা করলে যে পরিমাণ বিদ্যুৎ ব্যবহার হবে, তা হবে ১ kwh।

প্রধান তথ্য:

  1. ১ kwh হল ১ কিলোওয়াট-ঘন্টা, এটি একটি বিদ্যুৎ একক যা বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ নির্দেশ করে।
  2. ১ kwh একটি ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ এবং সময়ের গুণনের ফলে প্রাপ্ত হয়।
  3. এক কিলোওয়াট-ঘন্টা একটি ইলেকট্রিক উপকরণ 1 ঘন্টা পরিচালনা করলে যে পরিমাণ বিদ্যুৎ ব্যবহার হবে, তা হবে ১ kwh।

১ kwh ব্যবহারের প্রধান কারণগুলো কী?

১ kwh ব্যবহার করার প্রধান কারণগুলো নিম্নরূপ:

  1. বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ: ১ kwh ব্যবহার হলে এক ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার হচ্ছে। মানুষের দৈনিক জীবনে প্রতিদিনের বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণের উপর নির্ভর করে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে হচ্ছে।
  2. বিদ্যুৎ ব্যবহারের ধরণ: বিদ্যুৎ ব্যবহারের ধরণ একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিশোধের কারণ। উদাহরণস্বরূপ, বাসায় বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য এয়ার কন্ডিশনিং, রেফ্রিজারেটর, টেলিভিশন এবং অন্যান্য উপকরণগুলো ব্যবহার করা হয় যা প্রতিদিনের বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণে প্রভাব ডালে।
  3. ব্যবহৃত সময়: বিদ্যুৎ ব্যবহারের প্রধান কারণ হল ব্যবহারিকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহারের সময়। কোনো নির্দিষ্ট সময়ে বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ বেশি হলে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের পরিমাণও বেশি হবে।

প্রধান তথ্য:

  1. ১ kwh ব্যবহার করার পরিমাণে এক ইউনিট বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়।
  2. বিদ্যুৎ ব্যবহারের ধরণ পরিশোধের কারণ হতে পারে, যেমন বাসায় বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য উপকরণ ব্যবহার করা।
  3. বিদ্যুৎ ব্যবহারের সময় পরিশোধের পরিমাণ প্রভাবিত হতে পারে, যদি কোনো নির্দিষ্ট সময়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার বেশি হয়।

মিটারের প্রধান দুটি প্রকার কী কী?

মিটারের দুটি প্রধান প্রকার হল:

  1. প্রিপেইড স্মার্ট মিটার: প্রিপেইড স্মার্ট মিটার একটি বিদ্যুৎ মিটার যা ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণ এবং পরিমাণ পরীক্ষা করে এবং বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য অগ্রিম পেমেন্ট প্রদান করা হয়। এই মিটারে ব্যবহারকারীর অ্যাকাউন্টে আগে থেকেই অর্থ জমা থাকে এবং ব্যবহার সময়ে ক্রেডিট কাটা হয়। ব্যবহারকারীর মিটারে ক্রেডিট শেষ হলে, তিনি নতুন ক্রেডিট যোগ করতে পারেন অথবা পূর্বের অ্যাকাউন্টের উপর আর্থিক পরিমাণ জমা করতে পারেন। এই মিটারের উপকারিতা হল বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণের নিয়ন্ত্রণ এবং বিদ্যুৎ খরচের অগ্রিম পরিকল্পনা করা।
  2. ক্রেডিট মিটার: ক্রেডিট মিটার একটি বিদ্যুৎ মিটার যা বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীর বিদ্যুৎ ব্যবহার পরিমাণ মাপে এবং বিদ্যুৎ ব্যবহারের পরিমাণ অগ্রিম পরিশোধের পরিমাণ নির্ধারণ করে। ব্যবহারকারীর অ্যাকাউন্টে ক্রেডিট আছে এমনকি তিনি অগ্রিম পেমেন্ট না করে বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারেন। বিদ্যুৎ ব্যবহার শেষ হলে, ব্যবহারকারীর প্রদত্ত অ্যাকাউন্টের উপর ক্রেডিট বাকি থাকলেও বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে পারবেন। তবে, পরবর্তীতে সেই বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য তাকে অতিরিক্ত পরিশোধ করতে হবে। ক্রেডিট মিটারের উপকারিতা হল বিদ্যুৎ ব্যবহারের অগ্রিম পরিকল্পনা করা এবং বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য নতুন অর্থ ব্যবহারকারীকে সরাসরি জমা করতে হবে না।

প্রিপেইড মিটারে সর্বনিম্ন কত টাকা রিচার্জ করা যায় এই পোস্টটি পড়ে আপনার যে কোন মতামত আমাদের কমেন্ট করতে পারেন।